4.1.2017 নয়াগাঁও মাদরাসা মুন্সীগঞ্জ

কোরআন সুন্নাহর আলোকে পৃথিবীর বেশুমার মানুষের মধ্যে আল্লাহর নিকট সবচেয়ে উত্তম সুন্দর দামী মানুষ হল মুসলমান। এলেমের দাপট দেখাতে নেই, আমলের বাহাদুরী দেখাতে নেই। বরং কাঁদতে কাঁদতে জান্নাত পর্যন্ত পৌঁছার ব্যবস্থা করা চাই।

বিস্তারিত...

3.1.2017 (বয়ান) কাশ্মীরী হাউজিং ফরিদাবাদ ঢাকা

বান্দা তখন দামী হয় যখন সে আল্লাহর মহব্বতওয়ালা হয়। একবার আল্লাহ্ বলার পর‌, একবার সেজদা করার পর আরেক বার আল্লাহ বলতে পারা এবং সিজদা করতে পারাই দলিল যে আগের বার আল্লাহ্ বলা, সেজদা করা কবূল হয়ে গেছে। দুনিয়ার জীবন তো কোন না কোন ভাবে কাটবেই, কিন্তুু সর্বদা ফিকির করা চাই যে, আখেরাতে আমার কী হবে? আল্লাহর কাছে যিনি যত বড় হন তিনি নিজেকে তত নগন্য মনে করেন। কুকুরের মনিবভক্তির গুণের ন্যায় মানুষের মধ্যে আল্লাহভক্তি পয়দা হলে সে আল্লাহর ওলী হয়ে যায়। আল্লাহওয়ালাদের সাথে ওঠাবসাকারীর দিলেও তাদের ন্যায় আল্লাহর মহব্বত পয়দা হয়ে যায়। রহমত ২প্রকার আম নেয়মত যা দিয়ে মুসলমান, কাফের, এমনকি শয়তানকেও আল্লাহ্ পালেন। খাস নেয়মত যা দিয়ে তিনি শুধুই ঈমানদারদেরকে পালেন। যখন দিলে আল্লাহর মহব্বত পয়দা হয়ে যায় তখন দৃষ্টিসীমায় আল্লাহ্ ছাড়া আর কিছুই থাকে না।

বিস্তারিত...

3.1.17. মঙ্গলবার

যত মোজাহাদা তত নৈকট্য, নৈকট্য যত বেশী প্রতিটি এবাদতের মর্তবা তত বেশী । এজন্যই আল্লাহ্ওয়ালাদের এবং সাধারণ মুসলমানদের এবাদতের মান এক নয়। বেপরোয়া গুনাহগার আর তওবাকারী গুনাহগার এক না। ভয়ওয়ালা লজ্জিত গুনাহগারের ক্ষমা নিশ্চিত।

বিস্তারিত...

11.12.2016 বাদ মাগরিব গওহরডাঙ্গা মাদরাসা

এলমে দ্বীন বড় নেয়মত। এলমে দ্বীনের রূহ হল বান্দা সদা সর্বদা আল্লাহর এতাআতের জন্য বেচাইন ও অস্থির থাকবে। তাসাউফের হাকীকত হল এত্তেবায়ে শরীয়তে দেওয়ানা হওয়া। আল্লাহকে রাযী করার জন্য বান্দা যে সময়টুকু ব্যয় করে সেটুকুই প্রকৃত যিন্দেগী। আল্লাহ্ আমাদেরকে মানব বানিয়েছেন, জানোয়ার বানাননি। সুতরাং আমাদের জীবন মানবতার জীবন্ত নমুনা হওয়া চাই।

বিস্তারিত...

21.12.2016 মাদরাসাতুল হুদা. ভালুকা মোমেনশাহী

কাফের বাদশাহর চেয়ে নগণ্য ঈমানওয়ালার দাম অনেক বেশী। কেননা মৃত্যুর পর কাফেরের ঠিকানা জাহান্নাম। কিছু মৌলবী সাহেবের অতি মাত্রার উদারতার কারণে বহু মুসলমান মনে করে ছবি তোলা কোন নেকের কাজ। অথচ এটা ধবংসের কাজ। এতে নূরের বদলে আছে অন্ধকার আর অন্ধকার। আল্লাহর রাসূলের হেদায়েতের বাইরে কোত্থেকে আলো পায় এরা?

বিস্তারিত...

18.12.2016 বাদ যোহর জামেআ হাবীবিয়া জামালপুর

গুনাহের দিকে নফসের হাজারো টান থাকা সত্বেও যারা আল্লাহর মর্জি মোতাবেক চলে আল্লাহ তাদেরকে জান্নাত দান করবেন। আল্লাহকে খুশী রাখলেই জীবন বসন্ত হয়ে যায়। সুন্নত তরীকাতেই আল্লাহ্ খুশী হন। বোতল ধরে ঘট ঘট করে পানি পান করা সুন্নতের খেলাফ। পানি অল্প অল্প করে ধীরে ধীরে পান করা চাই। এজন্য উত্তম হল পানি গ্লাসে ঢেলে পান করা।

বিস্তারিত...

22.12.2016 বাদ ফজর খানকাহ ঢালকানগর ঢাকা

(জামেআ হাকীমুল উম্মতের সকল উস্তাদ এবং ছাত্রের শোনা জরুরী… হযরতওয়ালা দা. বা.) এলেম শেখার মূল উদ্দেশ্য আল্লাহকে রাযী খুশী করার তরীকা ও আহকাম জানা এবং সে মোতাবেক যিন্দেগী বানানো।এজন্য এলেম এবং আমল লাগালাগি অভিন্ন বিষয়। যেমন শরীয়ত তরীকত একটা থেকে অন্যটা আলাদা নয়। আহকামে এলাহীর নাম শরীয়ত। একটা শরীর হলে অন্যটা রূহ। রূহ ব্যতীত শরীর কোন কাজের না। অনুরূপ এলেম ব্যতীত আমল কোন কাজের নয়। এলেম থেকে আমল আলাদা হয়ে যাওয়ায় মাদরাসাগুলোর সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে। মাদরাসাগুলো এলেমই এলেম নিয়ে ব্যস্ত। আমলের কোন ফিকির নেই। এই এলেমের তেমন ফায়দা নেই। এলেমের সাথে আমল তথা আল্লাহর ভয়, আল্লাহর মহব্বত, এখলাস, গুনাহ থেকে বাঁচা, নামাযের এহতেমাম, ভুল হলে তওবা এস্তেগফার করার জাগ্রত চেতনা থাকা চাই। হর হালতে সুন্নতের এহতেমাম করা চাই। কমপক্ষে সুন্নতের খেলাফ না হওয়া চাই। ফরয, ওয়াজেব এবং সুন্নতে মুআক্কাদার চেয়ে নফলের গুরুত্ব কখনো যেন

বিস্তারিত...

30.12.2016 লালখাঁ সিটি জামে মসজিদ

নদী-সাগর যেমন পানিতে পরিপূর্ণ তেমনি কোরআন অকূল নূরে পরিপূর্ণ। কোরআন নিয়ে ব্যস্ত ব্যক্তিবর্গ নূর সাগরে জীবন কাটায়। ৫ বছরের অনেক শিশুরা সুললিত কন্ঠে শুধু বিশুদ্ধ তেলাওয়াতই করতে পারে না, বরং পূর্ণ কোরআনের হাফেযও হয়ে যায়। দার্শনিক ইমাম গাজ্জালী রহ. বলেনঃ মানুষের জীবন ধারণের প্রয়োজনে দুনিয়ার লাইনের জ্ঞান-বিজ্ঞান, শিক্ষা-দীক্ষা লাভ শুধু বৈধই নয়, বরং ফরযে কেফায়া। একারনে পার্থিব শিক্ষাকে হেয় দৃষ্টিতে দেখার সুযোগ নেই। পার্থিব শিক্ষা দোষের কিছু নয়, কিন্তু আমি কোরআন শিখলাম না কেন? সর্বযুগে সর্বত্র জনমনে ইসলামী ভাব, তা কেবলই আল্লাহওয়ালাদের ছাপ

বিস্তারিত...

30.12.2016 Juma (B

হালাওতে ঈমানী, দিলে নূর উপলব্ধি করার বিষয়ে নানান প্রশ্নের সমাধান যা সবার বারংবার শোনার মত বাংলা ভাষার ইতিহাসে অতুলনীয় এক বয়ান। কবিতা : পোষা ময়না কবিতা : ডাকো আমায় কে আল্লাহর আনুগত্য থেকে দূরে থাকাই অশান্তির আগুন। আল্লাহকে না দেখা দূরে থাকা নয়। নেক জ্বিন কখনো কখনো মানুষের সঙ্গ দেয়। আল্লাহওয়ালারা কখনো কখনো আল্লাহকে নিজেদের সঙ্গে হওয়া অনুভব করতে পারেন। আল্লাহর নৈকট্য লাভ অনুভব করা যায়। এটাই হল অন্তরে নূর লাভ হওয়া। রূহ যেদিন বালেগ হয় সেদিনই সে ওলী হয়ে যায়। দেহ বালেগ হওয়ার ন্যায় রূহ বালেগ হওয়াও অনুভব হয়। আল্লাহ্ওয়ালাদেরকে আল্লাহ্ নেশাপূর্ণ ঈমান দান করেন। তাঁরা সেই নেশাপূর্ণ দেহ, মন এবং অঙ্গ প্রত্যঙ্গ দিয়ে আসমান, যমীন তথা সুবিশাল পৃথিবী উপভোগ করতে থাকেন। আল্লাহর ভালোবাসা শোয়া মানুষকে দাড় করিয়ে দেয়।

বিস্তারিত...

30.12.2016 Juma(A)

দুনিয়ার প্রতিটি ছোটখাটো আমলও কেয়ামতে দেখার জন্য আল্লাহ্ বান্দার সামনে পেশ করবেন। ধর্ম সবই সমান বা বিগত অন্য সকল আসমানী ধর্ম ইসলামের সমান বিশ্বাস করা সম্পূর্ণ কুফরী। রহমান, সামাদ আল্লাহর নাম। ৮ এজন্য আবদুর রহমানকে রহমান ভাই বলা, অনুরূপ আবদুস সামাদকে সামাদ ভাই বলা জায়েয নেই। দ্বীনের প্রতিটি কথা প্রত্যেকেরই অত্যন্ত সতর্কতার সাথে বলা উচিত। তবে যারা জনপ্রতিনিধি এবং যাদের কথা দ্রুত অন্যরা অনুৃকরণ করে তদেরকে দ্বীনী কথা খুব সাবধানে বলা জরুরী। পৃথিবীর অন্য সকল ধর্মের সকল সৌন্দর্য মিলেও ইসলামের একটা সৌন্দর্যের সমান আদৌও হয় না। ফরয তো ফরয, শুধু অযূ বা নফল রোযার সমানও অন্য ধর্মে নেই। খাঁটি তওবার পর মনে হাজারো অছঅছা বা খটকা পয়দা হলে খাঁটি তওবার কোন ক্ষতি হয়ই না। যেমন বিবাহের সময় কবূল বলার মুহূর্তে যতই অছঅছ আসুক না কেন কবূল বলার পর বিবাহের কোনই ক্ষতি হয় না।

বিস্তারিত...

29.12.2016 পাটুয়াটুলী ঢাকা

যার বয়ান শুনতে আসা হয় তাঁর রুচি এবং আযমতের প্রতি লক্ষ্য রাখা জরুরী। নইলে তাঁর বয়ান থেকে ফায়দা হবে কিভাবে? বারংবার বারণ করা হয় ফটো তুলবেন না। কিসমত যাদের ভাল তারা মাওলাকে নিয়ে ব্যস্ত থাকে। হালাল রুজির জন্য বৈধ ব্যবসাকারী দুনিয়াদার নয়। বরং এটাও তার জন্য এবাদত। দ্বীনের উপর চলার একমাত্র সহজ পন্থা হল উলামায়ে কেরামের তাকলীদ।

বিস্তারিত...

27.12.2016 খাসমহল বাজার শরীয়তপুর

যে বান্দা আল্লাহকে খুশি রাখে আল্লাহপাক দোজাহানে তাকে খুশি রাখবেন। যে বান্দা আল্লাহকে স্মরণ করে যমিনে আল্লাহপাক তাকে স্মরণ করে আসমানে।

বিস্তারিত...

26.12.2016 কোদালপুর শরীয়তপুর

যে গুনাহ এবং হারাম দুনিয়া থেকে দূরে থাকে সে সর্বদা সীমাহীন নূরের মধ্যে ডুবে থাকে। গুনাহের বিষে যাকে ধরে সে নামায এবং যিকিরের মজা পায় না।

বিস্তারিত...

25.12.2016 বালার বাজার শরীয়তপুর

আল্লাহ্ আমাদেরকে দুনিয়ায় পাঠিয়েছেন আল্লাহকে মহব্বত করার, তাঁর বন্দেগী করার এবং ভুল হলে কান্নাকাটি করে তাঁকে রাযি খুশি করার জন্য। কোরআনেপাকের পরে সবচেয়ে বড় যিকির হল লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ। নামায মানুষকে কামিয়াব বানায় এবং মাওলার দিকে টানে। আল্লাহ্ কোরআনে বলেছেন, বান্দা মাফ চাইলে আমি অবশ্যই মাফ করে দেই।

বিস্তারিত...

23.12.2016 গেণ্ডারিয়া হাইস্কুল মোড় ঢাকা

সব ঈমান ও ইসলামওয়ালা আল্লাহ্পাকের নিকট সারা জাহানের সমস্ত মাখলুক এবং সমস্ত মানুষের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। দুনিয়ার সব কিছু থেকেও যার ঈমান নেই তার কিছুই নেই। আর যার দুনিয়ার কিছুই না থেকেও ঈমান আছে তার তো সবচেয়ে বড় বাদশাহী হাসিল আছে। দুনিয়াওয়ালা দাপট নিয়ে ব্যস্ত। আর ঈমানওয়ালা সেজদার মজা নিয়ে ব্যস্ত। মুসলমান হয়েও যে আল্লাহকে পায় নি সে সারা দুনিয়া পেয়েও কিছুই পায় নি। যে আল্লাহর জন্য ছোট হয় আল্লাহ তাকে উধের্ব তোলেন। সারা দুনিয়ায় যিকিরকারীদের সুবহানাল্লাহের আওয়াযের চেয়ে আল্লাহর কাছে গুনাহ্গারদের কান্নার আওয়াযের দাম বেশী।

বিস্তারিত...

23.12.2016 Juma (A)

দুনিয়ার যেখানেই থাকি কদমে কদমে আল্লাহর ভয় নিয়ে চলতে থাকি। এতে ঈমানী যিন্দেগীর তরক্কী হতেই থাকবে। উত্তমগুণাবলীর ঈমানওয়ালাদেরকে আল্লাহ্ প্রিয়পাত্র করে নেন। ইসলামের প্রতিটি বিষয় মনে প্রাণে মেনে নেওয়াই মূল। গবেষণা নয়। অহরহ তওবাকারী তাকওয়াওয়ালা জান্নাতওয়ালা। বারবার মাফ চাওয়াকে আল্লাহ অনেক বেশী পছন্দ করেন।

বিস্তারিত...

23.12.2016 Juma (B)

আল্লাহওয়ালাগণ নিজেদের চোখের পানিতে আল্লাহর নৈকট্যের নূরও অনুভব করতে পারেন যা সাত সমুদ্রের পানিতে নেই। অথচ পানিতেও নূর আছে সেটাও তাঁরা অনুভব করেন। তাকওয়াওয়ালা রূহ ব্যতীত যারা শুধুই অনুবাদের ভিত্তিতে কোরআন বোঝার চেষ্টা করে তারা অনুবাদ ছাড়া কিছুই বোঝে না। আল্লাহ্ওয়ালাদের সঙ্গে ওঠাবসা চলাফেরা করার ফলে জীবনের যে পরিবর্তন সাধন হয় সেটাই তাঁদের ফয়েয। হযরতওয়ালা শাহ আবদুল মতীন বিন হুসাইন সাহেব দা.বা. দাদা হযরত শাহ করাচী র. এর খাস ফয়েয পাওয়ার বিশেষ ঘটনা হল দাদা হযরত নিজের খাস হালতে তাঁকে পরপর তিনবার বুকের সাথে জড়িয়ে ধরে রাখেন। মহব্বত ছাড়া কোন এবাদতে রূহ পয়দা হয় না। আর এ মহব্বত আল্লাহ্ওয়ালাদের সোহবত ব্যতীত অর্জন হয় না। আল্লাহ্ যাকে চান তাকে তাওফীকের রশি দিয়ে নিজের দিকে টানেন। বান্দার বন্দেগীর শান অনুযায়ী যমিনের মান নির্ধারণ হয়। কেননা বাদশাহ আর চোরের বসার স্থানের মান এক নয়। অাল্লাহর জন্য যাঁরা সর্বদা

বিস্তারিত...

13.12. 2016 মাদরাসা মারকাযুল উলূম সানারপাড় ঢাকা

যেখানে এমন সুন্দর দ্বীনী মাহফিল থেকে আল্লাহর রাসূলের মহব্বত শিখা উচিত, আখেরাতের দামি সম্বল যোগাড় করা উচিত সেখানে মানুষ ফটো তোলার মত এত বড় ক্ষতির মধ্যে পড়ছে। কোরআন সুন্নাহর আলোকে প্রত্যেক মুসলমানই দামি। এমন না যে, কোন মুসলমান অনেক দামি আর কোন মুসলমানের এক পয়সারও দাম নেই। যে নফসের কথা শোনে না, শয়তানের ধোকার পথে যায় না আল্লাহ তাকে ফেরেশতার চেয়ে উচ্চ মর্তবা দান করেন। যে দিল মাওলাওয়ালা সে দিল আরামওয়ালা।

বিস্তারিত...

20.12.2016 madrasatul Abrar Taltola momenshahi

কোরআন আল্লাহ্ওয়ালা হওয়ার এবং আল্লাহমূখী জীবন গড়ার মহান কিতাব। ঈমানওয়ালারা বহুত বড় মর্তবাওয়ালা। সারা পৃথিবীর সকল কাফের মুশরিকদের চেয়ে একজন ঈমানওয়ালা দাম অনেক বেশী । চাই সে পুরুষ হোক বা মহিলা। তাকওয়াওয়ালা প্রত্যেক ঈমানদারই আল্লাহর ওলী। আল্লাহওয়ালাগণ বাহ্যিকভাবে বালা মুসিবতে আক্রান্ত হলেও বালা মুসিবতের পেরেশানি তাঁদের অন্তর পর্যন্ত পৌঁছতে পারে না।

বিস্তারিত...

19.12.2016 K B Ismail Road Momenshahi

দুনিয়ার সম্পদ এবং প্রতিপত্তি বেশী হওয়াই যদি দুনিয়ার ইজ্জত ও সম্মান এবং আরাম ও শান্তির মাপকাঠি হত তাহলে সবচেয়ে বেশী সম্মানওয়ালা হত নমরুদ, ফেরাউন, হামান, কারূন, আবূ লাহাব এবং আবূ জাহল। অথচ অপমান এবং লাঞ্চনা এদেরকে ঘিরে রেখেছিল।

বিস্তারিত...

18.12.2016 rajibpur kurigram

ছবি তুললে আল্লাহর রাসূল সা. অসন্তুষ্ট হন। ঈমানের বরকতে আল্লাহ্ জান্নাত নসীব করবেন। আর জান্নাতে মর্তবা বুলন্দ হবে নেক আমলের বরকতে। যারা অধীনস্থদের উপর জুলুম করে আল্লাহ তাদের তিলে তিলে এই জুলুমেরও বিচার করবেন।

বিস্তারিত...

17.12.2016. সিংহজানি স্কুল মাঠ জামালপুর সদর

একেক নিঃশ্বাসে সাত আসমান যমীনের চেয়েও বড় দৌলত কামাই করা যায়। ঈমানওয়ালাদের প্রতিটি নিঃশ্বাস বড় দামি। আল্লাহকে স্মরণকারী বান্দা যে যমিনে বসে সে যমিন সমস্ত রাজা-বাদশাহদের বাদশাহী এবং সিংহাসন থেকেও লাখো কোটি গুণ বেশি দামি। যে গুনাহর দুনিয়া ত্যাগ করে দেয় এবং সর্বদা আল্লাহ্পাকের হুকুমের অধীন যার যিন্দেগী হয় এই বান্দা যখন আল্লাহর নাম নেয় আল্লাহর কসম সাত আসমান যমীন ভরা মধুর দরিয়া থেকে আল্লাহ্পাক আল্লাহর নামে তাকে মজা দান করেন। যার ঈমান সুন্দর এবং দ্বীনের বুঝ সহীহ্ লাখো কোটি আসমান যমিন ভরা বন্দেগী বসে বসেই সে করতে পারে।

বিস্তারিত...

⁠⁠⁠16.12.2016 বাদ ফজর খানকা ঢালকানগর ঢাকা

সুন্নতের মহব্বত রাসূলের মহব্বতের প্রতীক। একারণে কোন সুন্নতকে হাল্কা মনে করার সুযোগ নেই। সুন্নত মোতাবেক আমলের এহতেমাম করলে রাসূলের মহব্বত বাড়ে। রাসূলুল্লাহ সা. এর মহব্বত যতই বাড়বে ততই দ্বীনী তারাক্কী নসীব হবে। ততই আল্লাহ্পাকের মহব্বত বাড়বে। সুন্নতের আমল ও মহব্বতের আশ্চর্য বৈশিষ্ট্য যে, একই সঙ্গে আল্লাহর সঙ্গেও মহব্বত বাড়ায়, আল্লাহর রাসূলের সঙ্গেও মহব্বত বাড়ায়। সুন্নতের আমলের বরকতে বান্দারও আল্লাহর সাথে মহব্বত বাড়ে এবং আল্লাহরও বান্দার সাথে মহব্বত বাড়ে। সুন্নতের আমলের বরকতে মাগফেরাতও নসীব হয়। এজন্য যিন্দেগীর সব শাখাতেই সুন্নতের আমলের এহতেমাম করা চাই। সুন্নতের খেলাফ হলে সৌন্দর্যই শেষ। কেননা প্রকৃত সৌন্দর্য হল মুহাম্মাদী সৌন্দর্য। আল্লাহর কথার উপর চললে যে কেউ সুন্দর হয়ে যায়। ঈমানওয়ালা, নামাযওয়ালা স্মার্টনেসওয়ালা।

বিস্তারিত...

16.12.2016 Juma (B)

বাইতুল হক জামে মসজিদ ঢালকানগর গেণ্ডারিয়া ঢাকা অন্ধের মত দুনিয়ায় বসবাস করা তো কোন ঈমানওয়ালার কাজ না। কামেলীনের সোহবতের বরকতে সবকিছুতেই আল্লাহর নিদর্শন বুঝে আসে। হাই আসলে মুখে হাত দেওয়া চাই। দ্বীন শেখার নিয়তে শিক্ষা লাভ করা চাই। ডিগ্রির জন্য নয়। আজ ফটো তোলা এক বিমারী হয়ে দাড়িয়েছে। কেউ প্রয়োজনে এটা জায়েয বললেও এটাকে সু্ন্নত এবং রহমত কে বলেছে। যারা নেটে নিজের ফটো ছড়িয়ে দিয়ে ইসলাম প্রচার করছে তারা ইসলামের ভয়ঙ্কর ক্ষতি করছে। সৃষ্টিজগৎ কুদরতের খেলা এবং মেলা। মুসলমান থাকে দুনিয়ায়, কিন্তু মূলে ফিকির থাকে আখেরাতের। এজন্য মুসলমান কখনোই দুনিয়াদার হয় না। দ্বীনী মজলিসে জীবন্ত এবং প্রানবন্ত থাকা চাই। ঝিম ধরে মাথায় রুমাল ঢেকে নতশীরে নীরব বসা কোন দ্বীনী মজলিসের আদব নয়। প্রায় শিক্ষাঙ্গনগুলোর ফ্রেশরুম (টয়লেট) ফ্রেশ নয়। তবে লক্ষ্মীপুরের জালালিয়া মাদরাসা এবং তার চমৎকার ফ্রেশরুম দেখে ডিসিও অবাক হয়েছেন। বলাই উদ্দেশ্য নয়, বরং দ্বীন

বিস্তারিত...

16.12.2016 juma (A)

ঈমানওয়ালা, নামাযওয়ালা, যিকিরওয়ালা সবচেয়ে প্রতাপওয়ালা। কারণ মহাপ্রতাপশালী আল্লাহ্ তার সাথে। ঈমানওয়ালা সফলকাম। قد افلح المؤمنون দুনিয়ার কোম্পানিগুলো যেমন samsung… Bata ইত্যাদির একাধিক ব্রাঞ্চ আছে এবং এগুলোর মূল কেন্দ্রে যেই মাল পাওয়া যায় ব্রাঞ্চেও সেই একই অরিজিনাল মাল পাওয়া যায়। তেমনি মুমিনের চির শান্তির কেন্দ্র জান্নাত, আর প্রতিটি সওয়াবের কাজ হল তার একেকটি ব্রাঞ্চ। পক্ষান্তরে কাফেরের চির শাস্তির কেন্দ্র জাহান্নাম, আর প্রতিটি গুনাহের কাজ হল তার একেকটি ব্রাঞ্চ। শাহ আবদুল গনী ফুলপুরী র. বলতেন… প্রতিটি মুসলমান যদি পাঁচটি ওয়াক্ত নামায পড়ে এবং সুন্নতী নিশান দাড়ি রাখে তাহলে সমগ্র ভারত তাদের পদানতথাকতে বাধ্য। যারা নামাযকে আল্লাহর খুশি লাভের মাধ্যম বানায় তারা সফলকাম। সৎসঙ্গী হল আল্লাহর রাসূলের আনুগত্যধন্য ব্যক্তি। আল্লাহ্পাক এমনদের সঙ্গ নিয়েই দুনিয়ায় চলতে আদেশ করেছেন। আল্লাহ্ ও রাসূলের ফলোয়ারদের অনুসারীদের জীবন ফুলেল হয়। গুনাহ থেকে দূরে থাকা যেমন জরুরী অসৎসঙ্গ থেকে দূরে থাকাও জরুরী।

বিস্তারিত...

12.12.2016 ইমদাদুল উলূম ভাগ্যকুল শ্রীনগর মুন্সীগঞ্জ

রাসূলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন যেখানে কোনো প্রাণীর ছবি থাকে বা কুকুর থাকে সেখানে রহমতের ফেরেশতা আসে না। এখন লোকেরা ছবি তোলার মধ্যে উল্লাস বোধ করে। বহু আলেম তালবে এলেম এমন আছে যারা মোবাইল নিয়ে ঘোরে আর যে হুজুর, শাইখুল হাদীস এবং পীর সাহেবের বয়ান ভালো লাগে সবার ছবি তুলতে থাকে। ইসলাম তো নিজেই অনেক সুন্দর। আলাদা আর্ট বা রঙ দিয়ে এটাকে সুন্দর করার কোনোই প্রয়োজন নেই। আল্লাহর রাসূল নিজে সুন্দর, তাঁর প্রতিটি সুন্নত সুন্দর। পুরা ইসলামই সুন্দর। এটাকে নতুনভাবে সুন্দর করার কোনই দরকার নেই। কোরআন নূরওয়ালা কিতাব। ঈমান পুরাটা নূরই নূর। যার অন্তরে ঈমান আসে সে আরশে আযম পর্যন্ত আলো দেখতে পায়।কোন পর্দাই তার সামনে থাকে না। ঈমানওয়ালা এমন নূরওয়ালা যে, সে যেদিক তাকায় সেদিকে নূরই নূর দেখতে পায়।

বিস্তারিত...

13.12.2016 মঙ্গলবার বাদ আসর

ঈমান এবং ইসলাম নূরই নূর। ঈমান আল্লাহর সঙ্গে নূরওয়ালা এক সম্পর্কের নাম। ইসলাম আল্লাহর জন্য এক নূরওয়ালা যিন্দেগীর নাম। ঈমানের বরকতে এতটা নূর অর্জন হয় যে, আরশে আযম পর্যন্ত এই বান্দার রূহের চোখের সামনে কোন পর্দা থাকে না। ঈমানের নূরওয়ালা বান্দা যদি হর কিসিমের গুনাহ্ থেকে মুক্ত থাকে তাহলে সে নিজেই উপলব্ধি করতে পারে যে, সাত আসমান যমিন ভরা নূরের মধ্যে সে বসবাস করছে। উযূর অঙ্গ প্রত্যঙ্গের আমলের দ্বারা বান্দা একদম নূর বেষ্টিত হয়ে যায়। দিল যদি আল্লাহ্পাকের মহব্বতওয়ালা হয় তাহলে আল্লাহ তাকে এমন নূর দান করেন যে, তার অন্তরে আল্লাহ্পাকের মহব্বতের নূরের সাগর ঢেউ খেলতে থাকে। আল্লাহ্ওয়ালারা সীমাহীন নূরের মধ্যে বেষ্টিত থাকেন। এজন্য আল্লাহওয়ালাদের সোহবতে যারা আসা যাওয়া করে তারা সেখানে নূরই নূরের মধ্যে হারিয়ে যেতে থাকে। দিলকে নূরওয়ালা বানানোর সহজ তরিকা হল গুনাহ্ থেকে বাঁচা এবং আল্লাহ্ ওয়ালাদের সঙ্গে উঠাবসা করা। নামায পুরাটা

বিস্তারিত...

11.12.2016 শামসুল উলূম পাইককান্দী গোপালগঞ্জ

আমাদের যিন্দেগী মহান রব্বুল আলামীনের পক্ষ থেকে অনেক দামি আমানত। জীবনে সুখ শান্তির মূল হল নিজেকে আল্লাহর আনুগত্যের মধ্যেই রাখা। বালেগ হওয়ার পর সদা যিম্মাদারী হল আল্লাহর কথা শোনা এবং রাসূলের তরিকা মোতাবেক চলা।

বিস্তারিত...

10.12.2016 শামসুল উলূম মাদরাসা, পাইককান্দী. গোপালগঞ্জ

কোরআনে পাকের প্রতিটি হরফ, প্রতিটি কথা নূরওয়ালা। এই কোরআনের হেদায়েত মোতাবেক যার যিন্দেগী তার প্রতিটি শ্বাস প্রশ্বাসও হয় নূরওয়ালা। যার অন্তরে আলহামদুর সূরা বা অন্য কোনো এক সূরা আছে তো লাখো কোটি চন্দ্র-সূর্যের চেয়ে ঐ এক সূরার নূর অনেক বেশী। কোরআনে পাকের এক এক আয়াতে এত মজা যে, সারা দুনিয়ার মধুতেও সেই মজা নেই। সারা পৃথিবীর কারী সাহেবদের মধুময় মনোহর তেলাওয়াতকে একত্রিত করলে রাসূলুল্লাহর তেলাওয়াতের বিন্দু বরাবরও হবে না। আফসোস! আজ মুসলমানরা নিজেদের সন্তানদেরকে ব্যাপকভাবে কোরআন শিক্ষা দেয় না। দেশের বড় বড় শিক্ষিত পদস্থ ব্যক্তিদের দ্বারা রাষ্ট্রের প্রতিটি অঙ্গনে কাঙ্খিত ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়। তাতে নি:সন্দেহে দেশ জাতির অ নে… ক উপকার হয়। কিন্তুু ডাক্তার, প্রফেসর, বিচারপতি, মন্ত্রী‌ এবং রাষ্ট্রপতি তাঁরা সবাই যদি কোরআনী শিক্ষাও জানতেন তাহলে তাঁদের প্রতিটি কর্ম এবং পদক্ষেপ কতইনা নূরানী হতো। সেটা তাঁদের আরো কতো মর্যাদার বিষয় হতো। পূর্বের মুসলিম বাদশাহদের

বিস্তারিত...

9.12.2016 জামেআ উসমানিয়া চাটখিল নোয়াখালী

দ্বীনী মাহফিলের মধ্যে বদদ্বীনীর কাজ হল ছবি তোলা। মাহফিল হয় ইসলাম, দ্বীন এবং আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য, মাহফিল হয় যিন্দেগী বনানোর জন্য। এভাবে ছবি তুললে মাহফিল করার ফায়দা কী? মানুষ ইসলামকে খেল-তামাশা বানিয়েছে। আমি আপনাদের কাছে করজোড় অনুরোধ করি প্রকাশ্যে গোপনে কেউ ছবি তুলবেন না, কেউ ভিডিও করবেন না। কেউ বিশৃঙ্খলা করলে বয়ান না করে সোজা রওয়ানা হয়ে চলে যেতে বাধ্য হব। কেননা এরকম পেরেশানির মধ্যে কোনো দ্বীনী কথা বলা যায় না। বহু ওলামাদেরকে দেখি যে, তারা এগুলো চোখেও দেখেন না, খেয়ালই করেন না, এবিষয়ে কথাই বলেন না। আল্লাহর রাসূলের পছন্দের বাইরে কাজ হচ্ছে সেগুলো আমাদের কষ্টই হয় না। আহ! এই মানুষ যদি সত্যিকারের মানুষ হতো তাহলে তার মর্যাদার সমান কেউ নেই। এমনকি সে ফেরেশতার চেয়ে উর্ধ্বের মর্যাদাওয়ালা হয়ে যায়। মানুষের মানুষ হওয়ার তরিকা হল মহান আল্লাহর সাথে সুন্দর সম্পর্ক পয়দা হয়ে যাওয়া। আজ ইসলাম ও

বিস্তারিত...

8.12.2016 মাসিক এজতেমার দিন খানকায় মাগরিবের পূর্বে সাক্ষাৎপ্রার্থী আগত ওলামায়ে কেরামের সঙ্গে মুসাফা শেষে বলেন

খানা ইত্যাদি বিষয়ে মেহমানের সুবিধা এবং রুচির প্রতি খেয়াল রাখার জন্য হাদীসপাকে নবী সা. অনেক গুরুত্ব দিয়েছেন। কিন্তু প্রায় মানুষই নিজের পছন্দকে মেহমানের জন্য সিলেক্ট করে নেয়। ফলে মেহমানের কষ্ট হয়।

বিস্তারিত...

9.12.2016 জুম’আর পরের বয়ান

সারাদেশে এমন দ্বীনী মজলিস যদি বেশী বেশী হয় যাতে দ্বীন সহীহ্ সুন্দর ও সহজভাবে হৃদয়গ্রাহী করে পেশ করা হয় তাতে সর্বস্তরের জনগণ বিশেষ করে যুবসমাজ বেশী আকৃষ্ট হত। পরিপক্ক আলেম থেকে দ্বীন শিখলে পদস্খলন হয় না। হালাল খেলে নূরই নূর পয়দা হয়। আল্লাহ্ নবী রাসূলদেরকে হালাল দিয়েই লালন পালন করেছেন । আল্লাহ্ওয়ালাদের সোহবতের বরকতে তাওফীক এবং নূর নসীব হয়। বেলা গেল সন্ধ্যা হল কাজ তো রইল বাকি।

বিস্তারিত...

9.12.2016 জুমআর পূর্বের বয়ান

ঈমান এবং নেক আমল সবচেয়ে ভারী এবং দামি আমল। আল্লাহর জন্যই যা কিছু আমল করা হবে কেবল সেটাই জমা থাকবে। মানুষ যে সম্পদ ব্যবহার করে এবং যা আল্লাহর রাস্তায় খরচ করে সেটা তার সম্পদ। বাকিটা অন্যদের, মোটেও তার নয়। আল্লাহওয়ালাদেরকে দুনিয়ার কাজে ব্যস্ত দেখলেও তাদের অন্তর মগ্ন থাকে আল্লাহকে নিয়ে। মনের হারাম চাহিদা ত্যাগকারীর প্রতি মুহূর্তে এক নতুন যিন্দেগী নসীব হয়। লেখাপড়া শিখে যে অন্যের সম্পদ, ইজ্জত এবং হক নষ্ট করে তার চেয়ে সেই নিরক্ষর ভাল যে অন্যের হক নষ্ট করতে জানেনা। আখেরাতের জীবন সুন্দর করার জন্যই দুনিয়ার জীবন। টাকা-পয়সা, ঘর-বাড়ি, ব্যবসা-বানিজ্য ইত্যাদি দুনিয়া নয়, দুনিয়া হল সেই প্রতিটি জিনিস যা তাকে আল্লাহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

বিস্তারিত...

8.12.2016 মাসিক এজতেমা

দিলে যখন ঈমানের নূর আসে তখন প্রতিটি শিরায় শিরায় নূর আসে। আসমান যমীন টিকে আছে থাকবে ঈমানের বরকতে। আল্লাহ আল্লাহ যিকরের বরকতে সমগ্র বিশ্বের প্রতিটি মাখলুক জীবনী শক্তি লাভ করতে থাকে। ইসলাম নিয়ে চিন্তা করার দায়িত্ব শুধুই ওলামায়ে কেরামের, অন্যরা তাদের অনুসরণ করবে। উম্মতের দ্বীনের সকলের সব ব্যথা গ্রহণীয় নয়। যেমন অযোগ্য ব্যক্তি ইমামতি করার দিলে ব্যথা হলেই তা গ্রহণীয় নয়। ডাক্তারে ডাক্তারে যেমন যোগ্যতার তারতম্য হয় তেমনি আলেমে আলেমে পার্থক্য আছে। সাধারণও আবার অসাধারণও। মিম্বর মেহরাবে কিছু দ্বীনী কথা বলতে পারলেই তিনি দ্বীনের নমুনা এবং সিদ্ধান্তদাতা হতে পারেন না। ইসলাম সকল সৌন্দর্যের সমাহার। সুতরাং কামেল ইসলামওয়ালার মধ্যে সকল ইসলামী সৌন্দর্য বিদ্যমান থাকে। দ্বীনের কথা বলতে হবে শুধুই কোরআন সুন্নাহর আলোকে। আর দ্বীনের নমুনা পেশ করতে হবে দ্বীনের খাঁটি রঙওয়ালাদের জীবন থেকে। দ্বীনের পরিপক্ক খাঁটি আলেমের কথা সর্বদা নিখুঁত নিখাদ ঝামেলা মুক্ত এবং হেদায়েতে পরিপূর্ণ

বিস্তারিত...

7.12.2016 জামেআ ইবনে মাসঊদ রা. লক্ষ্মীপুর (মেয়র আবু তাহের সাহেবের উদ্যোগে)

কিসমতওয়ালা বান্দারা আল্লাহকে স্মরণ করে। সকল প্রাণীর আহার তো আল্লাহ্ই দেন। তাহলে আল্লাহ তার ঈমান ও মহব্বতওয়ালা বান্দাকে কি খেতে দিবেন না। মুসলমান চোর ডাকাত হলেও তার মনে আল্লাহর রাসূলের মহব্বত বেশী।

বিস্তারিত...

7.12.2016 নাযিরপুর মাদরাসা চৌমুহনী নোয়াখালী

প্রকাশ্যে গোপনে কেউ ছবি তুলবেন না। এটা কোন সুন্নতী আমল নয়। বরং গুনাহ হয়। মানুষ বেপরোয়া হয়ে ওয়ায মাহফিলের ছবি তুলতে থাকে। ছবি তোলার দ্বারা যদি দ্বীনের হেফাজত হত তাহলে আল্লাহ্ সব নবী রাসূলদের ছবি হেফাজত করতেন যাতে এই ছবি দেখে দেখে দ্বীন কবূল করা সহজ হয়ে যায়। কিছু আলেম এ বিষয়ে খুব শক্তিশালী দলীল যুক্তি খাড়া করানোর চেষ্টা করেন যে এর দ্বারা ইসলামের প্রচার হয়। দেড় হাজার বছর পর নতুন করে ইসলামের কোন যুক্তি ঠেলে খাড়া করানোর কোনই প্রয়োজন নেই। ইসলামের যুক্তি আগের থেকেই খাড়া। এই পৃথিবীটাকে আল্লাহ সুন্দর করেছেন যাতে বান্দা আল্লাহর বন্দেগী এবং মহব্বত দিয়ে নিজেদেরকে সুন্দর বানায়। স্ত্রীকে তালাকের কথা বললেই তালাক হয় না। এমন কথা কখনো কারো মুখ থেকে বের হয়ে গেলে ত়তক্ষনাৎ বিজ্ঞ কোন আলেমের দারস্থ হওয়া জরুরী। ৭.৪০ মি: থেকে তাকলীদের আলোচনা

বিস্তারিত...

6-12-2016 নুরুল উলূম মাদরাসা , শেথের কেল্লা ,চাটথিল নোয়াখালী

যারা আল্লাহর মহব্বতে এবং আখেরাতের যিন্দেগী গড়ার জন্য বয়ান শোনেন তাদের একেকটা সেকেন্ড বড় মূল্যবান ইনশাআল্লাহ তাআলা। ছবি তোলা কোন ইসলামী আমল নয়। এতে নূর ও বরকত কিছুই নেই। আগে সকলে মনে করতো এটা গুনাহের কাজ। ইদানিং কিছু দ্বীনী পোশাকওয়ালা লোকের ভুলের কারণে অনেকেই এটাকে একটা মোবারক আমল মনে করে। মানুষ যখন ঈমাওয়ালা হয় তখন তার অন্তর, প্রতিটি শ্বাস, আমল, চলাফেরা, খাওয়া দাওয়া সবই নূরওয়ালা হয়। ঈমানওয়ালা যখন যেখানে থাকে সর্বদা সে মহান রব্বুল আলামীনের রহমতের ছায়ায় থাকে। ঈমানওয়ালার যদি সর্বদা এতটুকু ফিকির থাকে যে, আমি আমার আল্লাহকে নারায করবো না তাহলে আল্লাহর কসম সারা দুনিয়ার ভারী আমলের মধ্যে সে মশগুল থাকে। নফস তথা মনের চরিত্রই এমন যে, ভালোমন্দ উভয় দিকেই তার টান থাকে। বান্দা যদি মন্দ টান দমিয়ে চলতে পারে তাহলে নিশ্চিত সে সফল এবং ওলীআল্লাহ।

বিস্তারিত...

5.12.2016 মুজাহিদপুর বেগমগঞ্জ নোয়াখালী

দ্বীনের কথা বলার সময় কাছে সামনে বুঝমান লোক থাকা চাই যারা কথাগুলো অন্যদের কাছে যথাযথ পৌঁছাতে পারবে। এজন্য বাচ্চাদেরকে এসময় সামনে বসানো খেলাফে সুন্নত। বাচ্চাদের শিক্ষার স্থান হল মকতব। সামাজিক অবস্থানে যারা সম্মানিত যেমন মেম্বর, চেয়ারম্যান, ডিসি তাঁদের যথাযথ সম্মান করাও ইসলামের শিক্ষা। এবিষয়ে অনেকেই বেখবর। স্বয়ং রাসূলুল্লাহ এরশাদ করেন… এই বিশ্বের কোন মাখলুককে সম্মান করলে আল্লাহর পরিবারের লোকদেরকে সম্মান করা হবে। সুন্দর ব্যবহার শুধু মানুষের সাথেই নয়। বরং বিড়াল কুকুর সব প্রাণীর সাথেই। রাসূলুল্লাহ এরশাদ করেন… যে মুসলমান হালাল খায়, সুন্নত মোতাবেক যিন্দেগী কাটায় এবং কোন মানুষের প্রতি যুলুম করে না নি:সন্দেহে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।

বিস্তারিত...

4.12.2016 মারকাযে হামযা নদোনা নোয়াখালী

আল্লামা ইউসুফ বিন্নোরী র. কে ভুট্টো টিভিতে কাদীয়ানীদের বিরুদ্ধে বলার আবেদন করলে ফটো তোলা হবে বলে তিনি মোটেও টিভিতে যান নি। উম্মত যদি মুসলমান হয়ে বাঁচতে চায় এবং কবূলযোগ্য আমল ও এবাদতওয়ালা হতে চায় তাহলে নবীর পরে একটাই রাস্তা সেটা হল আলেমদের অনুসরণ করে চলা। তাকলীদের আলোচনা ৯৪ মিনিটের পর থেকে

বিস্তারিত...

3.12.2016 মেঘাদীঘির পাড় চাটখিল নোয়াখালী

আল্লাহর খুশীর আমল সব সুন্নত তরীকায়। ছবি তোলা, ভিডিও করা আল্লাহকে রাযি খুশী করার সুন্নত তরীকার কোন আমল নয়। সে ওলী যে সর্বদা আল্লাহকে খুশী রাখে। ঈমানওয়ালারা সবাই জান্নাতওয়ালা।

বিস্তারিত...

3.12.2016 দাওয়াতুল হকের বার্ষিক এজতেমা, যাত্রাবাড়ী, ঢাকা

হাকীমুল উম্মত হযরত থানবী র. এর তামাম খোলাফায়ে কেরামের উলুম ও মাআরেফের নির্যাস এবং বারাকাত মুহিউস সুন্নাহ হযরত মাওলানা আবরারুল হক র. এর মধ্যে জমা হয়ে গিয়েছিল। কাজের কাজ হল আকাবেরের রাস্তায় পড়ে থাকা। আকাবেরের রাস্তায় পড়ে থাকা কেউ মাহরূম হয় না। বর্তমানে মাদারেস, ওলামায়ে দ্বীন এবং দ্বীনী খেদমত অনেক। কিন্তুু আকাবির ও আসলাফের রাস্তার মধ্যেই পড়ে না থাকলে সবই বরবাদ। হযরত থানবী নাওয়ারাল্লাহু মারকদাহু বার বার বলতেন -যে সকল মানুষ আসলাফ ও আকাবিরের রাস্তায় মজবুতভাবে পড়ে থাকে তারা দুইটার এক ফল পাবেই। ১. হয় সে আউলিয়াদের কাতারে স্থান পাবে। ২. নয় কমপক্ষে মৃত্যুর পূর্বেই কামেল তওবা নসীব হয়ে তারপর মৃত্যু হবে। সিরাতে মুস্তাকীমের উপর চলার জন্য পহেলা জরুরী হল এলমে সহীহ্ থাকা। আর আকাবির থেকে পাওয়া এলেমই একমাত্র সহীহ এলেম। আমল যদি সহীহ্ এলেম মোতাবেক না হয় তাহলে সেটা কোন কাজের নয়। আকাবেরের উলূমের

বিস্তারিত...

2.12.2016 জুম’আর পরের বয়ান

জুম’আর নামাযের আযান হওয়ার পর ক্রয় বিক্রয় নিষিদ্ধ এখলাস সুন্নত শরীয়ত মোতাবেক না হলে গ্রহণীয় নয়। একারণে একদিন আগে সৌদির সাথে ঈদ করা এখলাসের সাথে হলেও সুন্নত শরীয়ত মোতাবেক না হওয়ায় তা সঠিক নয়। সর্বযুগে পৃথিবীর প্রতিটি ভূখন্ডে কোরআন সুন্নাহই একক মাপকাঠি। সৌদি মাপকাঠি নয়। সৌদিরও মাপকাঠি কোরআন সুন্নাহ। মুসলমানদের সাজ সজ্জা ইহুদীদের মত হতে পারে না। পোশাকের ক্ষেত্রে বিজাতীয় অনুকরণ বড়ই দুঃখ ও লজ্জাজনক। যার ইনকাম হারাম তার হাদিয়া গ্রহণ করাও জায়েয নাই। একটা নীতিমালার ভিত্তিতে যাতে আমাদের জীবন গড়তে থাকে তার জন্য আমাদের এই মজলিস। সর্বযুগে আকাবিরের সোহবতধন্য লোকেরাই সিরাতুল মুস্তাকীমের বুঝওয়ালা হয়েছেন। ইসলাম তো ওহীর মাধ্যমে পরিপূর্ন হয়ে গেছে। সুতরাং ইসলামে কোনো বুদ্ধিজীবী, চিন্তাবিদ এবং গবেষক হয় না। ইসলামের বড় বড় অনুসরণকারী হয়।

বিস্তারিত...

2.12.2016 জুমআর পূর্বের বয়ান

অামরা নামায, রোযা, হজ, যাকাত ইত্যাদি বিষয়ে ইসলামের বিধানের খেয়াল রাখলেও লেনদেনের ক্ষেত্রে অনেকেই খেয়াল রাখি না। কামেলীনের সোহবতের বরকতে যে আমলী যিন্দেগী নসীব হয় তার রঙ হয় পাকা। নইলে আমলের ঝড় তুফান শুরু হতে দেখা গেলেও তা স্থায়ী হয় না। স্বপ্ন কোরআন সুন্নাহ মোতাবেক হলে সে অনুযায়ী আমল সঠিক। নইলে নয়।

বিস্তারিত...

1.12.2016 মাদরাসায়ে আবী হুরায়রা সোমপাড়া চাটখিল নোয়াখালী

বান্দা যেখানেই থাক আল্লাহর সন্তুষ্টির উপর কায়েম থাকলেই সেটা এবাদত রূপে গণ্য হয়। যিন্দেগী শান্তিওয়ালা হয় যখন তা ‌মাওলা‌ওয়ালাও হয়।

বিস্তারিত...

30.11.2016 জালালিয়া মাদ্রাসা লক্ষ্মীপুর

কালো মানুষের অন্তরেও যদি ঈমান এবং আল্লাহর ভালবাসা থাকে, সাথে জীবনে মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সা. এর সুন্দর আদর্শের চিহ্ন থাকে তাহলে সেই কালো মানুষটা চাঁদ সুরুজের চাইতেও সুন্দর হয়ে যায়। ঈমানহীন কোন ব্যক্তি যদি সারা দুনিয়ার সকল মানুষকে ফ্রী অন্ন, বস্ত্র, চিকিৎসা সেবা দেয় এবং দুনিয়ার সর্বত্র তাকে সুমহান হিসাবে গণ্য করা হয় তাহলেও পরকাল হিসাবে আল্লাহর কাছে তা ছাই মাটির সমানও না। কেউ যদি নিজের পরকালকে সুন্দর এবং নিরাপদ করতে চায় তাহলে কোরআন সুন্নাহর আলোকে পন্থা শুধুই দুইটা ১. হয় ডাইরেক্ট নবীর থেকে এলেম শিখতে হবে। ২. নতুবা নবীর সাচ্চা নায়েব কোন আলেমে দ্বীন থেকে শিখতে হবে। কোরআন সুন্নাহ মোতাবেক জীবন চলার বাস্তব পদ্ধতির নাম মাযহাব তাকলীদ বিষয়ে অতীব গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা ২২ মিনিটের পর থেকে

বিস্তারিত...

29.11.2016 কলাকোপা মাদ্রাসা লক্ষ্মীপুর

ফেরেশতারা থাকতেও আল্লাহ্ এ লক্ষ্যে মানুষ সৃষ্টি করেছেন যাতে তারা না দেখেও আল্লাহকে মহব্বত করবে এবং তাঁর আনুগত্যের জন্য সদা বেচাইন থাকবে। ভুল হলে কান্নাকাটি করে পাকছাফ হয়ে যাবে। আল্লাহ্ এক আয়াতে এলমে ওহীর জ্ঞানে দক্ষ বিজ্ঞদের সাথে পরামর্শ করার জন্য স্বয়ং নবীকেও আদেশ দিয়েছেন এবং অন্য আয়াতে এমনদের পরামর্শের প্রশংসাও করেছেন। সুতরাং তাদের পরামর্শ এবং রায় যা হবে তা অন্যদের মেনে চলার জন্যই কোরআনের এ বর্ণনা। ফলে অন্যদের জন্য তাদের তাকলীদ করে চলা এ আয়াত থেকেও প্রমাণিত হয়।

বিস্তারিত...

29.11.2016 বড় জামে মসজিদ মান্দারী বাজার লক্ষ্মীপুর

ঈমানওয়ালা এক অতুলনীয় শ্রেষ্ঠ বাদশাহীওয়ালা মানুষ। ঈমানওয়ালা নেক আমলওয়ালা হলে নিশ্চিত জান্নাতুল ফেরদাউসের অনন্তকালের মেহমান। যেই রঙওয়ালা যিন্দেগী হবে সেই রঙওয়ালা মৃত্যু নসীব হবে। হাশরেও সেই রঙওয়ালা হবে। যে জীবনভর আল্লাহর রাজি খুশি নিয়ে ব্যাস্ত থাকে আল্লাহ্ তাকে নমরুদের মৃত্যু দেন না। কোরআনের পরে শ্রেষ্ঠ যিকির লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ। যাদের কথা আচরণে এমন মনে হয় যেন যিকিরওয়ালারা আসামির দল তাদের অবস্থান কোরআনের বিরুদ্ধে। বান্দার সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ জান্নাতের বাগ বাগিচা হবে। উম্মত যখন সুন্নত শরীয়ত মোতাবেক যিন্দেগীওয়ালা আলেমের তাকলীদ ও অনুসরণ থেকে দূরে থাকবে তখন তারা গোমরাহ হয়ে যাবে।

বিস্তারিত...

28.11.2016 চকবাজার মেয়র সাহেবের মসজিদ লক্ষ্মীপুর

যিন্দেগী আল্লাহ্পাকের খুশীর আমলওয়ালা বান্দা কামিয়াব এবং ভালো বান্দা। নবী সা. মুনাফিকদেরকে জানতেন চিনতেন। কিন্তু কখনোই তাদেরকে মসজিদে নববীতে আসতে এবং যুদ্ধে শরিক হতে বাঁধা দেননি। এ যমানাতে যে যেখানেই আছি যার মধ্যে আমরা যতটুকুই দ্বীনী কাজ দেখতে পাই সেটাকে সম্মানজনক দৃষ্টিতে দেখি। প্রত্যেক সাহাবী প্রয়োজন মাফিক এলেমের অধিকারী ছিলেন, তারপরও তাঁরা বড় বড় সাহাবীদের তাকলীদ করতেন।

বিস্তারিত...

28.11.2016 চরমটুয়া মাদ্রাসা লক্ষ্মীপুর

আল্লাহ্ থেকে বিচ্ছিন্ন যে মানুষ সে ধোকাগ্রস্ত। মানুষ তখন মানুষের আসনে থাকে যখন সে আল্লাহকে বিশ্বাস করে। আল্লাহকে মানা এবং ভালোবাসার ক্ষেত্রে যে যত অগ্রগামী সে তত বড় মানুষ। আগে ফতোয়া দিতেন ফতোয়া বিশারদ বিজ্ঞ ওলামায়ে কেরাম। আর এখন ইসলামের নামে কতিপয় গবেষক ও চিন্তাবিদ নিছক নিজস্ব বুঝকে ভিত্তি বানিয়ে ফতোয়া দিতে শুরু করছেন। তারা নিজেদের আখেরাতকে নিরাপদ ও অক্ষত রাখার চিন্তা হয়ত করেন না। তারা বলেন কোরআন স্পর্শ করার জন্য উযূ থাকার প্রয়োজন নেই। অথচ হযরত ওমর ইসলাম গ্রহণের পূর্বে কোরআন স্পর্শ করতে চাইলে তাঁর বোন তাঁকে স্পর্শ করতে দেন নি।বর্তমানের গবেষকদের উদ্ভাবনে আরো ধরা পড়েছে যে, কোরআনের মর্যাদা বাজারের অন্যান্য বই-পুস্তকের মতই। দ্বীনের বড়দের তাকলীদ থেকে যে বিচ্ছিন্ন সে দ্বীনের মূল ধারা থেকেই বিচ্ছিন্ন।

বিস্তারিত...

27.11.2016. সামাদ ময়দান লক্ষ্মীপুর

জ্ঞানী এবং বুদ্ধিমান মানুষ তারা যারা দুনিয়াতে বসবাস করে, কিন্তুু গাফেল থাকে না। বরং পরকাল জীবনের সামান যোগাড়ে ব্যাস্ত থাকে। যে কোন মানুষ সম্মানের সাথে বাঁচতে চায়। এ বিষয়ে রাসূলুল্লাহ সা. বলেন-কোন মুসলমানের জন্য জায়েয নেই যে, সে নিজেকে কখনো অপমানের সম্মুখীন করবে। তাহলে একজন মুসলমান এতটা জ্ঞানী, এতটা সামাজিক জ্ঞান সম্পন্ন, এতটা প্রখর মেধা সম্পন্ন হওয়া চাই যে, এই মুহূর্তে কোন কাজটা করলে, কোন কথাটা বললে, কোন আচরণটা করলে, কোন পথে হাঁটলে, কার সঙ্গে ঘুরলে, কার সঙ্গে বন্ধুত্ব করলে, কার সঙ্গে দূরত্ব করলে তার লাঞ্ছিত ও অপমানিত হতে হবে সে বিষয়ে অত্যন্ত সতর্ক হবে। মুমিন সাদাসিধা হওয়ার অর্থ হল, জান্নাতী আমলগুলো সে সহজেই বুঝে যায়, কিন্তু হাজার বুঝানোর চেষ্টা করেও তাকে জাহান্নামের পথে টানা যায় না। সে বিষয় তার বুঝে আসেই না। ৮ যার জীবন কোরআন সুন্নাহ মোতাবেক এবং অন্যদেরকে কোরআন সুন্নাহর আদর্শে জীবন

বিস্তারিত...

26.11.2016 বটতলী মাদরাসা,লক্ষীপুর

ঈমান এবং ইসলামের চেয়ে বড় কোন সম্পদ নেই। ঈমানওয়ালার মর্যাদা রাজা বাদশাহদের চেয়েও বড়। সারা জাহানের বাদশাহী লাভের পর ঈমান না থাকলে পরিনাম জাহান্নাম। দুনিয়ার সবচেয়ে বড় ফকির মিসকিন হয়েও যদি সীনাতে ঈমান থাকে তাহলে সারা দুনিয়ার রাজা বাদশাহদের চেয়েও সে বড় ধনী। অনেক মৌলভী এমনভাবে ছবি তুলতে শুরু করেছেন যে, ছবি তোলা বৈধ বা সুন্নত হওয়ার জন্য নতুন কোনো অহী আসল কি না? কেয়ামতের পূর্বে ইসলাম যিন্দাকারীদের হাতেই ইসলাম ক্ষত বিক্ষত হতে থাকবে। ইসলাম তো নূর, রহমত, মহব্বত এবং আখেরাতের সম্পদ। কিন্ত ছবি তোলা এর কোনটা? মাওলানা কারামত আলী জৈনপুরী হযরত সাইয়্যেদ আহমদ শহীদ র. এর নির্দেশে সমগ্র বাংলাদেশে সফর করেছেন। তিনি যেদিকেই যেতেন দলে দলে মানুষ তার হাতে ইসলাম কবূল করতো। তাঁর উসতাদ আহমদ শহীদ র., তাঁর উসতাদ শাহ আবদুল আযীয র., তাঁর উসতাদ শাহ ওলী উল্লাহ র. যাঁদের বরকত ও প্রচেষ্টায় এ

বিস্তারিত...

27.11.2016 আল মুঈন একাডেমী লক্ষ্মীপুর

সমাজ এবং পৃথিবী যে বস্তুকে সুন্দর নজরে দেখে সেটার যথাযথ মূল্যায়ন হওয়া চাই। এজন্য ফুলের তোড়া পায়ের কাছে এবং জায়নামাজ যেখানে সেখানে না রাখা চাই। উলামায়ে কেরামই হলেন ইহ ও পরকালীন সকল কল্যাণ ভাণ্ডার আসমানী এলমের ধারক বাহক। প্রত্যেকের এলেম যেন বন্দেগী হয়। আলেমে দ্বীন ততক্ষণ পর্যন্ত নিজেকে নায়েবে রাসূল মনে করবে না যতক্ষণ না যবান, চক্ষু, দিল, আমল এবং যিন্দেগী নূরওয়ালা হয়। এলেম তখন নায়েবে রাসূলের মাকাম পায় যখন তা কোন কামেল আল্লাহওয়ালার সোহবত ও তরবিয়ত পায়। যারা মনে করে এলেম এবং আমল যথেষ্ট, সোহবতের প্রয়োজন নেই তাদের এলমী বুঝ যথেষ্ট নয়। ইসলামের অবিচ্ছেদ্য বিষয় হল কোন কামেল আল্লাহ্ওয়ালার তরবিয়তে এলমী এবং আমলী জীবন গড়া। সোহবতধন্য মানুষগুলোই কামেল এবং কামিয়াব। সাহাবায়ে কেরাম আমল তো নিজেরাই করতেন, তবে তাঁদের তাযকিয়াহ করতেন স্বয়ং রাসূলুল্লাহ সা.।

বিস্তারিত...

24.11.2016 খুসুসী মজলিস বাঁকরা মাদরাসা‌ ঝিকরগাছা যশোর

খানা খাওয়ার সময় এমন কথা, কাজ এবং আচরণ থেকে সম্পূর্ণ বিরত থাকা চাই যাতে আহারকারীর কোন প্রকার অরুচি পয়দা না হয়। যে মাথা নোয়াতে জানে না এবং কোন মুরব্বীর অধীনে নিজের তরবিয়ত করায়নি তার সব কিছুতেই অনিয়ম পরিলক্ষিত হতে থাকে। প্রত্যেক আলেম তালেবের উচিত কোন আল্লাহ্ওয়ালার তরবিয়তে নিজেকে সোপর্দ করা। হযরত সদর সাহেব হুজুর নিজে সালাহুদ্দীন সাহেবকে মীযান পড়ার বছরে তাকে বলেছেন, তুমি আমার সাথে এসলাহী সম্পর্ক করে নাও। একেকটা সুন্নত রাজা বাদশার কুরসীর চেয়েও দামী। ভিতরে প্রবেশের অনুমতির জন্য সালাম দেওয়ার পূর্বেও অবস্থা বোঝা চাই। আর সালাম দিয়েই রুমের ভিতরে চলে আসতে নেই। দরজার আদব হল, নিজের প্রবেশের সময় দরজা খোলা থাকলে খোলা রাখা, বন্ধ থাকলে বন্ধ রাখা।

বিস্তারিত...

25.11.2016 লালবানু শাহী মসজিদ কালীগঞ্জ কেরানীগঞ্জ

নিজেকে যে যতই দাপটওয়ালা মনে করুক না কেন কবরস্থানে গেলে সব দাপট খতম হয়ে যায়। যার যিন্দেগী সুন্নত তরীকার সে সবচেয়ে বড় মর্যাদাওয়ালা। রাসুলুল্লাহর সুন্নত তরীকা মানুষকে শ্রেষ্ঠ ইজ্জতওয়ালা বানায়। সকল শান্তি, রহমত বরকত আল্লাহর হকুম এবং রাসূলের তরীকার মধ্যে। যে সর্বদা আল্লাহর ধ্যানে সময় কাটায় সে সর্বদা নূরের মধ্যে ডুবে থাকে। একবার আল্লাহর নাম নেওয়ার মিষ্টতা সারা জাহানের মধুর চেয়ে অনেক বেশী। আল্লাহর নামের নেশা এত বেশী যে, আল্লাহর নাম শুনলে অনেকেই সহ্য করতে পারে না। রাসূলুল্লাহ সা. যৌবনকালে লম্বা লম্বা আট রাকআত তাহাজ্জুদ পড়তেন। আট রাকআতের পূর্বে সংক্ষেপে দুই এবং পরে দুই মোট বার রাকআত তাহাজ্জুদ শেষে এক সালামে তিন রাকআত বিতর আদায় করতেন। (হাদীস ভাণ্ডারে কোথাও এমন উল্লেখ নেই যে, নবী সা. জীবনে একবারের জন্য হলেও রাতে নামায শুরু করে এক রাকআত পূর্ণ করে সালাম ফিরিয়েছেনে। ) প্রচুর হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, নবী

বিস্তারিত...

22.11.2016. শাজিয়ারা মাদ্রাসা খুলনা

শিশু যেমন মায়ের সাথে লেগে থাকে তেমনি আরেফবিল্লাহ হযরত শাহ আবদুল মতীন বিন হুসাইন সাহেব দা:বা: নিজ শায়েখ শাহ করাচী হযরত হাকীম আখতার সাহেব র. এর সাথে থাকতেন।…… মোহতামিম শাজিয়ারা মাদ্রাসা। বান্দার কাজ হল হর হামেশা আল্লাহর বন্দেগী এবং মহব্বতে ডুবে থাকা। আল্লাহর সাথে যার নিবিড় মহব্বত হয়ে যায় সেই প্রকৃত মানুষ হয় এবং কামিয়াব হয়ে যায়। সে ওলী এবং জান্নাতী হয়ে যায়৷ নফসের হারাম চাহিদা বর্জন করে আল্লাহর রাযি খুশি মোতাবেক চলার নাম আল্লাহর মহব্বত। আল্লাহর দুনিয়ায় বসবাসকারীর আল্লাহ্ থেকে এক মুহূর্ত গাফেল থাকা শোভা পায় না। হয় কান্নাকাটি করে, না হয় কান্নাকাটির ভান করে জান্নাতের দুয়ার খোলা চাই। বান্দা হাজারো গুনাহ্গার হোক না কেন, বান্দার কোন ডাকই বেকার যায় না। যখন দিলের হালত এমন হয় যে, আল্লাহ্ ছাড়া আর কিছু বুঝে না তখন সে অনুভব করে যে, কে যেন আমার হৃদয়ে আসীন। তিনি

বিস্তারিত...

22.11.2016 বগচর মাদরাসা যশোর

ফটো তোলা কি জান্নাতে যাওয়ার কোন সুন্নতী আমল? কিছু ছাত্রের হাফেয হওয়ার সৌভাগ্য লাভ হওয়ায় তারা তেলাওয়াত করে শোনায়, তেলাওয়াত তো জান্নাতে যাওয়ার আমল। ফারেগ হাফেয ও আলেম ছাত্রদের পাগড়ীও প্রদান করা হয়। ঐ সময় কেউ আবার ফটো তুলতে ব্যাস্ত হয়ে পড়ে। তো তাদের এ ফটো তোলাও কি জান্নাতী আমল? কোরআন সুন্নাহর আলোকে এতে নেকী তো নেই, নি:সন্দেহে এটা গুনাহ এবং তামাশা। দ্বীন কারো খেয়াল খুশির নাম নয়। আমাদের দ্বীনী দায়িত্বই হল বন্দেগীওয়ালা যিন্দেগী বানানো। উলামায়ে কেরামকে এড়িয়ে নিজ গবেষণার মাধ্যমে কোরআন বুঝা বা চিন্তাবিদ ও গবেষকদের অনুসরণে ইসলাম অনুসরণ করা আল্লাহ্ ও রাসূলের পছন্দ নয়। নি: সন্দেহে এটা সুস্পষ্ট গোমরাহী।

বিস্তারিত...

21.11.2016. তালতলা জামে মসজিদ খুলনা

গভীর মনোযোগ সহ বয়ান শোনার সময়ও নিজের নড়াচড়ার প্রয়োজন হলে সামনে পিছনে ডাইনে বামে সবদিকের খেয়াল রেখে অত্যন্ত সতর্কতার সাথে নড়াচড়া করা উচিত। দ্বীনদার তবকার লোকদের মধ্যে যদি হুশ জ্ঞান না থাকে তাহলে সমাজ এবং দুনিয়ার কাজ এরা করবে কিভাবে। মিছিল মিটিং জানে। কিন্তু কাজ গুছিয়ে করতে জানে না। মিটিং মিছিলে কাজ হয় না। গুছিয়ে কাজ করা শিখতে হয়। কোরআনে আল্লাহ্ ঈমানওয়ালাদেরকে اولو االالباب বলেছেন। অর্থাৎ তারা জ্ঞানী বিচক্ষণ বুদ্ধিমান হবে। আমরা এখানেই হোচট খেতে থাকি। ফলে সামাজিক অবস্থানে আমরা পিছিয়ে যাই। মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী র. দুনিয়ার যে প্রান্তেই যেতেন উনিই উনি হতেন। উনার সামনে কেউ দাড়াতে পারতো না। এরকম লোকেরাই হন কামেল নায়েবে রাসূল। কোরআন সুন্নাহর আলোকে নবীর পরে সাহাবায়ে কেরাম কেয়ামত পর্যন্ত মানুষের মডেল এবং নমুনা। তাঁদের ঈমান ছিলো নূর এবং এখলাসওয়ালা। এখলাস হল সবকিছু একমাত্র আল্লাহর রাযি খুশীর জন্যই করা। এখলাসওয়ালা

বিস্তারিত...

20.11.2016. মোহাম্মদনগর মাদ্রাসা গল্লামারী খুলনা

ঈমান ইসলাম বড় দৌলত। আল্লাহ্পাক কপালওয়ালাকে এ দৌলত নসীব করেন। আল্লাহ্পাক বলেন -কিয়ামতের দিন সম্পদ সন্তান কোন কিছুই কাজে আসবে না। পাক-ছাফ একটা দিল নিয়া যেতে পারলে নাজাত হয়ে যাবে। গোডাউন গোডাউন চাল ডাল খেয়ে ফেলতে পারার দ্বারা মানুষ হওয়ার পরিচয় হয় না। মানুষ তখন মানুষ হয় যখন এই দিল দ্বারা আল্লাহকে মহব্বত করে। আর ভিতরের পশুত্ব যখন খতম হয় তখন মানুষের মনুষ্যত্ব যিন্দা হয়। কোন আল্লাহ্ওয়ালার দিলে জায়গা করতে পারলে আল্লাহর রহমতের দুয়ার উন্মুক্ত হয়েই যায়।

বিস্তারিত...

19.11.2016 নালুয়া মারকাযুল উলুম মাদরাসা, চিতলমারী, বাগেরহাট

কেউ ফটো তুলবেন না, ভিডিও করবেন না। আল্লাহর ওয়াস্তে ডিলিট করে দেন। মানুষ দুনিয়াতে আসে তো মৃত্যু তার সঙ্গে সঙ্গে আসে। কখন যে পরকালের জন্য তার ডাক পরে কেউ তা জানে না। এজন্য এক সেকেন্ডও অসাবধান থাকা কারো জন্য উচিত না। রাসূলুল্লাহ সা. বলেন -প্রতিটি মানুষের কবর প্রতিদিন তাকে ডাকতে থাকে, আমি প্রবাস ঘর‌, আমি অন্ধকার ঘর, আমি মাটির ঘর এবং পোকা-মাকড় ও সাপ-বিচ্ছুর ঘর, তুমি সাথী যোগাড় কর, তুমি আলোর ব্যাবস্থা কর, তুমি বিছানা -পত্রের ব্যাবস্থা কর, এই বিপদ থেকে বাঁচার ব্যাবস্থা কর। যেসব বান্দারা দুনিয়ার জীবনে আল্লাহকে ভুলবে না, যিন্দেগীতে আল্লাহ্পাকের হকুম মোতাবেক আমলে মশগুল থাকবে দুনিয়াতে আল্লাহ্ তাদেরকে রহমত শান্তিতে রাখবেন এবং পরকালে কদম কদম তাদেরকে মদদ করবেন। প্রতি মুহূর্তে আমার আপনার বয়স বাড়ছে না, বরং নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে। যিকির করার জন্য উযূ করা, কেবলামুখী হওয়া, বসা কোন জরুরী না। আল্লাহ্ পাকের

বিস্তারিত...

18.11.2016 Juma (B)

কবিতা: জীবনের হিসাব কবিতা দ্বীনীও হয় আবার শয়তানীও হয়। মসজিদে তো শুধুই দ্বীনী কবিতা শোনানো হয়। নবী, সাহাবী, তাবেঈ বরং সর্বযুগেই কবিতার মাধ্যমে দ্বীন প্রচার হয়ে আসছে। এমনকি হাদীসের সব কিতাবেই কবিতা উল্লেখ হয়েছে। দ্বীন উপস্থাপনের জন্য সহীহ্ সমঝ বুঝ চাই। তওবা করে ফিরে আসল তো জান্নাত পেয়ে গেল।

বিস্তারিত...

17.11.2016. Juma (A)

বয়ানের শেষের দিকে নামায বিষয়ে শিক্ষনীয় আলোচনা যা বারবার শোনার মত রহমতের রাস্তা হল আল্লাহর এতাআত বা সন্তুষ্টি পূর্ণ আনুগত্য। আল্লাহ্পাকের বাতলানো প্রতিটি কাজ আলোকদ্বীপ্ত। নবীর পরে আল্লাহ্পাকের নুরওয়ালা দ্বীনের ধারকবাহক ওলামায়ে কেরাম। আল্লাহ চান যে, বান্দা প্রত্যেক কথা কাজ শুধুই আল্লাহর জন্য করুক। আল্লাহ্ রাসূলের কথা মানলেই রহমত হয়। অনেকেরই যিকরের ফিকির নেই। অথচ কোরআনে আল্লাহ্ বেশী বেশী যিকর করতে বলছেন। এখানে বেশী বেশী আল্লাহর যিকর করাই উদ্দেশ্যে। কেননা এতাআত তো সর্বাস্থায় জরুরী। মা যেমন চায় যে, সন্তান বেশী বেশী মা মা বলে ডাকুক তেমনি আল্লাহ্ চান যে, বান্দা আমাকে বেশী বেশী আল্লাহ্ আল্লাহ্ বলুক। নামায এই ধ্যানে পড়া চাই যে, এটাই আমার জীবনের শেষ নামায। যাতে এক নামাযই লাখো কোটি নামাযের সমান হয়ে যায়। নামাযের সানার তর্জমা বুঝে পড়লে বান্দা মুহূর্তের মধ্যে আল্লাহর নৈকট্যে হারিয়ে যায়। নামাযের শুরুতে আল্লাহু আকবার বলার সাথে সাথেই

বিস্তারিত...

16.11.2016; শেখ আফসারদ্দীন মাদরাসা লঞ্চঘাট বরিশাল

সহজ সাবলীল ভাষায় দ্বীন পেশ না করলে অনেকেই দ্বীনী বিষয়গুলো বুঝতে হিমশিম খায়। ওয়ায মাহফিলে কেউ ফটো তুলে আল্লাহকে নারায করবেন না। আল্লাহর নেয়মত পূর্ণ উপভোগ করলে পূর্ণ শোকরের তাওফীক হয়। আল্লাহ্ওয়ালাদের খাদেমরাও আল্লাহর খাস নেয়মতে ধন্য হয়ে যায়।

বিস্তারিত...

13.11.2016 খানকাহ, ভাণ্ডারিয়া. পিরোজপুর

আরবী ডিকশনারি এবং নিজ গবেষণার ভিত্তিতে কোরআনের তাফসীর করা যায় না। নবী, সাহাবী, তাবেঈ বা তাবে তাবেঈ থেকে বর্ণিত ব্যাখ্যাই কোরআনের তাফসীর। পূর্বসূরীদের তাফসীর এবং ব্যাখ্যা বাদ দিয়ে নিজের মস্তিষ্ক প্রসূত আবেগ তাড়িত ব্যাখ্যার নাম তাফসীর বিররায়। রাসূলুল্লাহ সা. বলেছেন ব্যক্তিগত মস্তিষ্ক প্রসূত জ্ঞান দ্বারা যে ব্যাখ্যা করবে সে জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হবে। প্রতিটি হাদীস কোরআনে পাকের কোন না কোন আয়াতেরই ব্যাখ্যা। যার সকল কর্মের ভিত্তি হয় আল্লাহর জন্য সে ঈমানের সর্বোচ্চ স্তরে উন্নীত। রাসূলুল্লাহ সা. বলেন-“”তোমরা যদি চাও যে, আল্লাহর কাছে তোমাদের নামায কবূল হয়েই যাক তাহলে আলেমগণ যেন তোমাদের ইমামতি করেন, কেননা তাঁরা আল্লাহর সামনে তোমাদের সাফল্যের জন্য যোগ্য প্রতিনিধি।” সুতরাং সারাবিশ্বে দাড়ী চাঁছা মোচ বড় একদমই ইংরেজদের মত পোশাক পরা একদল মানুষ শুধু কোরআন এবং নামায সহীহ পড়তে পাড়ার কারনে ইমাম হয়ে যায় তাদের এ পদক্ষেপ ঠিক না। যেই বান্দা আল্লাহর হয় আল্লাহ্

বিস্তারিত...

15.11.2016 দারুল আবরার, রূপাতলী, বরিশাল

সম্পদ এবং ক্ষমতা বেশী হলেই উঁচু সম্মানের অধিকারী হয় না, বড় হয় না, যার সীনাতে ঈমান আছে , যার জীবনে ইসলাম আছে এই পৃথিবীতে তার মত বড় আর কেউ নেই। ঈমানওয়ালা সবচেয়ে বড়, ইসলামওয়ালা সবচেয়ে বড়। সবচেয়ে নিকৃষ্ট মানুষ, যার জীবনে কোন নেক আমল নেই শুধুই গুনাহ্ আর গুনাহ, তবে বুকে ঈমান আছে এই ব্যক্তিকে আল্লাহ্ এ পৃথিবীর মত দশ পৃথিবীর সমান জান্নাত দান করবেন। আর যাদেরকে আল্লাহ্পাক আসমানী এলেমে ধন্য করেন তাদের জন্য তো মর্তবাই মর্তবা। আলেম যদি পয়সার দাপটওয়ালার সামনে নিজেকে ছোট মনে না করে সারা জাহানের বাদশাহীর চেয়ে তার মর্তবা বেশী। অমুসলিমরাও তাকে শ্রদ্ধা করে। আলেমকে নিজের এলমের সম্মান করা চাই পার্থিব জ্ঞান লাভও দরকার। কেননা পার্লামেন্ট, অফিস, মসজিদ, মাদ্রাসা, জীবন ধারণ ও জীবনোপকরণের সকল সরঞ্জাম আসবাবপত্র আলেমদের তৈরী করা নয়। সুতরাং জাগতিক জ্ঞানকে অবজ্ঞার দৃষ্টিতে দেখার কোনই সুযোগ নেই। কিন্তু এ

বিস্তারিত...

14.11.2016 কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ঝালকাঠি

মানুষের মন তখন যিন্দা হয় যখন দিলে আল্লাহর মহব্বত পয়দা হয়।

বিস্তারিত...

8.11.2016 বাদ এশা পৌরসভা মার্কেট সন্দ্বীপ

যে গোলাম নিজের মনিবকে কষ্ট দেয় সে সুখে থাকে না। মহান আল্লাহর খুশির উপর নির্ভর করে বান্দার সুখ শান্তির যিন্দেগী। যে সন্তান মা বাবাকে কষ্ট দেয় সে সুখে থাকে না। দুনিয়াতেও তার শান্তি নাই, আখেরাতেও তার শান্তি নাই। ইজ্জত তার নসীব হয় না। অনেক মা বাবা এবং বড়রা ছোটদেরকে নিচু ভাষায় কথা বলেন সেটাও ঠিক নয়। তুমি অর্থ সম্পদ এবং বাদশাহীর জন্য আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি কর না, বরং তুমি কান্নাকাটি কর যাতে তুমি আল্লাহকে সেজদা করতে পারো, ভালোবাসতে পারো। বিধর্মীদের অনুকরণ এবং খেয়াল করার পরিনামে অবশেষে নিজের ঈমান ইসলামটুকু রক্ষা হয় না। যিন্দেগীর চলন যেমন কবরের অবস্থাও তেমন। মুসলিম দেশে বিধর্মীরা বসবাস করবে এবং যে সকল বিধর্মী মুসলিম দেশের নাগরিক হবে তাদের জানমাল, ইজ্জত আব্রু, তাদের ধর্ম কর্ম সবটাই নিরাপদভাবে করতে দেওয়ার দায়িত্ব সব মুসলমানের উপর এবং রাষ্ট্রের উপর। কিয়ামতে দুনিয়ার এ উযূ নূর হবে

বিস্তারিত...

8.11.2016. জমির মাঝি মসজিদ বাউড়িয়া সন্দ্বীপ

সব সময় আখেরাতের স্মরণ রেখে দুনিয়ায় বসবাস করা চাই। যে আল্লাহর নেয়মত খেয়ে আল্লাহর স্মরণ করে এবং তাঁর শোকরগোযারী করে তার কথা কাজ ঘুম জাগরণ সবই এবাদতে শামিল হতে থাকে।

বিস্তারিত...

11.11.2016 Juma (B) বয়ান থেকে

এই চোখে ঐ ফুল এবং খুঁজি সারাক্ষন কবিতা দুটির ব্যখ্যায় তাকলীদের আলোচনা আছে। আল্লাহকে রাযি রাখলে দুনিয়াই জান্নাত হয়ে যায়। মনের হাজারো মন্দ টান থাকা সত্ত্বেও সেদিক থেকে বিরত থাকাই তাকওয়া এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি। যারা তাকলীদ মানেই না এবং কোরআন নিজে নিজে বুঝার দাবিকারী তাদের হিসাবে তো কোরআন হাদীসের কোন তরজমাই করা উচিত নয়। কারণ তরজমা করলে শুনলেই তার তাকলীদ করা হবে পুরা কোরআনই ইসলাম।

বিস্তারিত...

11.11.2016 Juma (A)

মুসলমানদের জন্য জরুরী রাসূলুল্লাহ সা. কেই জীবনের মডেল বনানো। যারা যত বেপরোয়া তারা ততই অশান্তিতে থাকে। মানুষ হিসাবে কর্তব্য হল আল্লাহর সাথে নিবিড় সম্পর্ক গড়া। “আমি কিছু একটা “এই ধারনাই মানুষকে ধবংস করে দেয়। যিন্দেগীতে ইজ্জত পাওয়া শুধুই আল্লাহর অনুগ্রহের ফলে হয়, এজন্য ইজ্জত পেলে কখনোই অহংকারে ডুবতে নাই। আল্লাহর কাছে নিজের গুনাহের নাম উল্লেখ করে করে মাফ চাইতেই নেই, সেটা তো আরো বড় গুনাহ। বরং এজমালী এবং সংক্ষিপ্তভাবে এভাবে বলাই যথেষ্ট যে আল্লাহ্ আমার সব গুনাহ মাফ করে দেন। যেমন নিজের অপরাধ উল্লেখ করে করে সন্তানের বলা যে আব্বা! আমার অমুক দিনের অমুক বেআদবী এবং এই এই আচরণের জন্য মাফ চাই। এতে তো পূর্বের ঘটনা মনে হওয়ায় পিতা আরো বেশি কষ্ট পাবেন। এক্ষেত্রে বলা যে, আব্বু আমার সকল অন্যায়ের জন্য মাফ চাই।

বিস্তারিত...

7.11.2016 আকবর হাট সন্দ্বীপ

রোগমুক্ত অন্তর হল ঈমানওয়ালা অন্তর কুফর শেরেকের দাগমুক্ত অন্তর। আওলিয়ায়ে কেরাম বিশ্বের সবার এবং সব কিছুর জন্য খায়ের বরকতের দোআ করতেই থাকেন। কোন বান্দার কান্না দেখলেই আল্লাহর রহমত তার দিকে মোতাওয়াজ্জাহ হয়। আল্লাহর নেয়মত লুটপাট করার সবচেয়ে বড় মাধ্যম হল দুরুদ।

বিস্তারিত...

10.11.2016 মাসিক এজতেমা বাদ এশা

তাকলীদ ও তাফসীর هدى للمتقين কোরআন তাকওয়ার গাইড বুক। নামায পুরাটাই আল্লাহর শ্রেষ্ঠ যিকির এবং নূরই নুর। অতি পাণ্ডিত্যপূর্ণ ভাষায় দ্বীন পেশ করা ঠিক নয় বরং সর্বদা সহজ সরল ভাষায় দ্বীন পেশ করা চাই। আল্লাহর খাস বান্দাদের দিলে আল্লাহ দ্বীনের সহীহ্ বুঝের এলহাম করতে থাকেন ويلهمه رشدا মুত্তাকীদের সঙ্গ ব্যাতীত কেউ মুত্তাকী হয় না, সুতরাং আল্লাহওয়ালা হওয়ার জন্য কোন আল্লাহওয়ালার তাকলীদ করা জরুরী। এতাআত অর্থ সন্তুষ্টপূর্ণ আনুগত্য। রাসূলুল্লাহ ছিলেন কোরআনের জীবন্ত চিত্র। যারা কামেলীন হন তাঁদের তরবিয়তের শানই ভিন্ন হয়। আকাবেরে দ্বীনই হলেন উলুল আমর। মুসলিম বাদশাহ কোরআন সুন্নাহর পূর্ণ অনুসারী হলে তিনিও উলুল আমরের মধ্যে শামিল। আত্তাহিয়্যাত্ আল্লাহর সর্বোচ্চ নৈকট্যে পৌঁছে দেয়। ঈমানদারের বৈশিষ্ট্য সর্বাবস্থায় কিছু না কিছু খরচ করতে থাকা।

বিস্তারিত...

6.11.2016 সুগন্ধা, চট্টগ্রাম

মানুষের যদি কোন কামেল আল্লাহওয়ালার মহব্বত এবং এত্তেবায়ে সুন্নতের দৌলত নসীব হয়ে যায় তাহলে তার জীবনের সকল কালো অধ্যায় নূরে পরিণত হয়ে যাবে। এ দুইটার কোন একটা থেকে বঞ্চিত হলে কিয়ামতে তার জীবনের সকল নূরানী অধ্যায় কালো অধ্যায়ে পরিণত হবে।

বিস্তারিত...

4.11.2016 Juma (B)

শাহ করাচী বলতেন: অহরহ তওবা করতে পারা ব্যক্তির মাাগফেরাত হবে না এমনটা ভাবাই ঠিক না। আল্লাহ বান্দার পাপ-দোষ গোপন রাখতে পছন্দ করেন, এমনকি কারো অন্যের দোষ প্রকাশ করাও পছন্দ করেন না। যেমন পিতা কখনোই পছন্দ করেন না যে, এক ছেলের থেকে হয়ে যাওয়া কোন দোষ-ত্রুটি অন্য ছেলে অন্যদের কাছে বলে বেড়াক। বান্দার দোনো জাহানে কামিয়াবীর জন্য আল্লাহর এক ফোটা রহমতই যথেষ্ট। আল্লাহ্ওয়ালাদের সঙ্গ অবলম্বনকারীর যিন্দেগী প্রকৃত যিন্দেগী নসীব হয়।

বিস্তারিত...

4.11.2016 Juma (A)

ইসলামের সব কিছুই আলোই আলো বাকি অন্য সকল ধর্ম ও মতাদর্শ অন্ধকারই অন্ধকার। পৃথিবীতে যার যতই দাপট প্রভাব প্রতিপত্তি হোক না কেন মৃত্যুর পর ইসলামের অনুসারী ব্যতীত সবারই ঠিকানা হবে সোজা জাহান্নাম। নবীজী নিজের কথা কাজ আচরণ এবং ভাব ভঙ্গি দ্বারাও দ্বীনে ইসলাম শিক্ষা দিয়েছেন একারণে নবীজীর প্রতিটি বিষয় অনুকরণীয় এবং নমুনা। বান্দা যখন নামাযে দাড়ায় তখন আল্লাহ বান্দার একদমই সামনে হয়ে যান এটা বান্দার শ্রেষ্ঠ সম্মান যা প্রতিদিন পাচঁ ওয়াক্তের প্রতি নামাযে লাভ করতে থাকে। এ মর্যাদা অন্য কোন জাতির লাভ হয়ই না।

বিস্তারিত...

1.11.2016 মঙ্গলবার বাদ আসর

নামায‌, তওবা, দোআ, দুরূদ সব এবাদত আলোই আলো। প্রতিটি আমল আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই করা উচিত। অহরহ তওবা ও এস্তেগফারকারী আল্লাহওয়ালা হয়ে যায়।

বিস্তারিত...

11.11.2016 জুমার পূর্বের বয়ান থেকে…..

মুসলমানদের জন্য জরুরী রাসূলুল্লাহ সা. কেই জীবনের মডেল বনানো। যারা যত বেপরোয়া তারা ততই অশান্তিতে থাকে। মানুষ হিসাবে কর্তব্য হল আল্লাহর সাথে নিবিড় সম্পর্ক গড়া। “আমি কিছু একটা “এই ধারনাই মানুষকে ধবংস করে দেয়। যিন্দেগীতে ইজ্জত পাওয়া শুধুই আল্লাহর অনুগ্রহের ফলে হয়, এজন্য ইজ্জত পেলে কখনোই অহংকারে ডুবতে নাই। আল্লাহর কাছে নিজের গুনাহের নাম উল্লেখ করে করে মাফ চাইতেই নেই, সেটা তো আরো বড় গুনাহ। বরং এজমালী এবং সংক্ষিপ্তভাবে এভাবে বলাই যথেষ্ট যে আল্লাহ্ আমার সব গুনাহ মাফ করে দেন। যেমন নিজের অপরাধ উল্লেখ করে করে সন্তানের বলা যে আব্বা! আমার অমুক দিনের অমুক বেআদবী এবং এই এই আচরণের জন্য মাফ চাই। এতে তো পূর্বের ঘটনা মনে হওয়ায় পিতা আরো বেশি কষ্ট পাবেন। এক্ষেত্রে বলা যে, আব্বু আমার সকল অন্যায়ের জন্য মাফ চাই।  

বিস্তারিত...

11.11.2016 . জুমার পরের বয়ান থেকে

আল্লাহকে রাযি রাখলে দুনিয়াই জান্নাত হয়ে যায়। মনের হাজারো মন্দ টান থাকা সত্ত্বেও সেদিক থেকে বিরত থাকাই তাকওয়া এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি। যারা তাকলীদ মানেই না এবং কোরআন নিজে নিজে বুঝার দাবিকারী তাদের হিসাবে তো কোরআন হাদীসের কোন তরজমাই করা উচিত নয়। কারণ তরজমা করলে শুনলেই তার তাকলীদ করা হবে। পুরা কোরআনই ইসলাম।

বিস্তারিত...

হযরতওয়ালার মালফূয (জুমার বয়ান থেকে)

  *جو اللہ والوں سے  جڑتاہے وہ اللہ کی طرف اڑتا ہے যারা আল্লাহওয়ালাদের সাথে জুড়তে থাকে* তারা আল্লাহর দিকে উড়তে থাকে। হযরতওয়ালা শাহ্ আবদুল মতীন বিন হুসাইন সাহেব (দামাত বারাকাতুহুম)

বিস্তারিত...

ছহীহ-শুদ্ধভাবে কোরআন তেলাওয়াতওয়ালা পরিবারের উপর আল্লাহর খাছ রহমতের ধারা বর্ষণ হয়

এক যমানা ছিল যে, মুসলানরা ঘরে ঘরে কোরআনে কারীম তেলাওয়াত করতো। দুনিয়ার যে লাইনেই যেতো সবাই নিজ নিজ ঘরে ছেলেদেরকে-মেয়দেরকে কোরআন শরীফ পড়াতো। সবার মনে আশা জাগতো যে, মহান আল্লাহর কোরআনকে আমি পড়বো। দেখা গেছে যে, অফিসে যাবার আগে ঘুম থেকে উঠে বাবা-মা, ছেলে-মে্য়েদেরকে বলে এই!জলদি করে অযূ করে নামায পড়ে কোরআন শরীফ হাতে নাও। বাবা নামাযোর পর দোআ-কালাম পড়তেছেন বা যিকির করতেছেন, আর অপেক্ষা করতেছেন ও বলছেন এই!ওদের জাগিয়ে দিয়েছো কি না? এক যমানা এরকম ছিলো কি না? আপনারা যারা মুরব্বী মানুষ আপনারা সেই যমানা দেখেন নাই? ছোট বেলা আমরা দেখছিলাম যে, ঘরে ঘরে মা-বাবারা ছেলে-মেয়েদের পেরেশান করতে থাকতেন যে, এই তোমরা কোরআন শরীফ নিয়ে বসনা কেন?  প্রত্যেকটা মানুষ মনে করতো যে, কোরআন শরীফ পড়লে আমাদের ঘরে রহমত নাযিল হবে। আমাদের সন্তান কোরআন শরীফ পড়লে আসমান থেকে আল্লাহপাকের নূর নাযিল হবে। আসমান  থেকে রহমত নাযিল

বিস্তারিত...

মুসলমান কোন কাঙ্গাল জাতির নাম নয়, ঈমানী যিন্দেগীর প্রতি মুহূর্তের আমল তাকে মস্তবড় সিংহাসনের অধিপতি বানিয়ে দেয়

ঈমান যার নছীব হয় তার কপাল এত বড় হয় যে, আল্লাহপাক  নিত্য তাকে দিতেই থাকেন। নে, আরো  নে…….। দিতেই থাকেন……, দিতেই থাকেন……। ঘুম থেকে জাগলে বলেন, এই নে, দিলাম তোরে এই বিশাল রাজত্ব। ফজরের দুই রাকআত সুন্নত পড়লো তো এক বিশাল রাজত্ব নসীব হয়ে গেল। আবার ফরয দুই রাকাআত পড়লো তো আগের চেয়ে কয়েক হাজার কোটি গুণ শ্রেষ্ঠ রাজত্ব নসীব হয়ে গেল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলছেন—ফজরের দুই রাকআত সুন্রত যে পড়ে আসমান-যমীন থেকে বড় দৌলত ঐ মুহুর্তেই নসীব হয়ে য়ায়।সাত আসমান-যমীন থেকে, পৃথিবী এবং পৃথিবীর মধ্যে যত হীরা-কাঞ্চন-মতি -সোনা-দানা, বাদশাহী এবং সিংহাসন, রাজ মুকুট—সব কিছুর চেয়ে অনেক বেশী দামী ফজরের দুই রাকআত সুন্নত। এজন্য মুসলমান কোন কাঙ্গাল জাতির নাম নয়। মুসলমান এমন এক জাতি যে ঈমান তাকে একদমই বাদশাহ বানায়ে দেয়। ঈমান তাকে এক মুহুর্তে মস্তবড় সিংহাসনের অধিপতি বানায়ে দেয়। কিন্তু সে এমন সিংহাসনের অধিপতি

বিস্তারিত...

মুমিনের জীবনে সবচেয়ে বড় দিন, সর্বশ্রেষ্ঠ দিন যে দিনে তার ঈমান নসীব হয়েছে

khanqah

আল্লাহপাকের বান্দাদের প্রতি কি যে রহম  তা অকল্পনীয়। ঈমান দান করলেন, তো সে কি উল্লাস! হাজারো-লাখো-কোটি ঈদের দিনের চেয়ে কোন মুমিনের জীবনে ঈমান লাভের দিন অনেক বড় দিন। হাজারো-লাখো-কোটি কোটি ঈদের দিনের চেয়ে বড় ঈদের দিন যে দিন তার ঈমান নসীব হয়েছে। যে দিন তার ঈমানের দৌলত নসীব হয়েছে। পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ দৌলত ঈমানী দৌলত।

বিস্তারিত...

বরকতময় রমযানের বরকতি পূর্বাভাসই শবে বরাত

khanqah

আল্লাহপাক  বান্দাদেরকে এত ভালোবসেন যে, প্রতিমুহুর্তে  নিত্য নতুনভাবে স্নেহ দান করেন। নিত্য নতুন রঙে ভালো বাসেন। নিত্য নতূন উপঢেৌকন পেশ করতে থাকেন।এইতো শাবান মাস আসলো বরকত নিয়ে, অনেক কল্যাণ নিয়ে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শাবান মাসে বেশি বেশি নফল রোজা রাখতেন।এভাবে তিনি আল্লাহকে ভালোবাসতেন। আল্লাহর সাথে  আরো ঘনিষ্ঠতা  অর্জন করতেন। যখন ১৪ই শাবানের দিনের সুর্য  অস্ত যায় এবং ১৫ তারিখের রাত শুরু হয় তখন রব্বুল আলামীন নতুনভাবে, এক নতুন রঙে তার মায়া-মহব্বত-ভালোবাসা  এবং রহমতের প্রকাশ ঘটান। তার রহমতের নতুনভাবে আত্মপ্রকাশ ঘটে। সুর্য ডুবলেই তিনি ডাকতে থাকেন। সুর্য ডুুবলেই তিনি ডাকাডাকি শুরু করে দেন য়ে,  আস! আমার কাছে।আস আমার দিকে।আমি ধুয়ে দেব, আমি পরিষ্কার করে দেব। আমি পবিত্র বানায়ে  আমার রহমতের কোলে তুলবো। ফের শবে বরাত গেল। শব কোন  আরবী শব্দ নয়্।  আসলে শব্দটা হল লাইলাতুল বারআত। এক সময় পৃথিবীর উপর ফার্সী ভাষার প্রচণ্ড প্রভাব ছিল।

বিস্তারিত...




বাজার থেকে সংগ্রহে করার মত ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‍‍‍‍"হাকীমুল উম্মত প্রকাশনী"র কিছু কিতাব

বি:দ্র এগুলো নিছক প্রচ্ছদ pdf নয়